সকল প্রকার সারের দাম ২০২৪

আন্তর্জাতিক বাজারে বর্তমান বৈশ্বিক পরিস্থিতির কারণে বিভিন্ন ধরনের সারের দাম উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলাদেশে বিশেষ করে সারের দাম উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এই সারের দাম উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধির কারনে দেশের কৃষকদের মধ্যে চরম হতাশার মধ্যে পড়েছে । সারের ক্রমবর্ধমান দাম কৃষকদের বিরূপ প্রভাবে ফেলেছে কৃষি উৎপাদনে।

সার দেশের কৃষি খাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। বাংলাদেশ তার অর্থনীতির জন্য ব্যাপকভাবে কৃষির উপর নির্ভর করে এবং সার ব্যবহার ফসলের ফলন এবং খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধিতে উল্লেখযোগ্যভাবে অবদান রেখে।আজকের এই পোস্টে আমরা সকল প্রকার সারের দাম ২০২৪ সম্পর্কে জানব।

সকল প্রকার সারের দাম ২০২৪

বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত সার হল ইউরিয়া, ট্রিপল সুপারফসফেট (টিএসপি), ডায়ামোনিয়াম ফসফেট (ডিএপি), এবং মিউরিয়েট অফ পটাশ (এমওপি)। ইউরিয়া সর্বাধিক ব্যবহৃত নাইট্রোজেন সার, টিএসপি এবং ডিএপি ফসফেটিক সার হিসাবে ব্যবহৃত হয়। মাটির পটাসিয়ামের পরিপূরক করতে এমওপি ব্যবহার করা হয়।

বাংলাদেশে সারের একটি উল্লেখযোগ্য বার্ষিক চাহিদা রয়েছে। বিশেষ করে, দেশে প্রতি বছর ২.৬ মিলিয়ন টন ইউরিয়া, ৭৫০০০০ টন টিএসপি, ১৬০০০০ টন ডিএপিপি এবং ৪৫০০০০ টন এমওপি প্রয়োজন হয়। বর্তমানে ইউরিয়া ও পটাশ সারের ঘাটতি রয়েছে। দেশে পর্যাপ্ত সার মজুদের সরকারের আশ্বাস সত্ত্বেও কৃষকরা হতাশাজনক বাস্তবতার সম্মুখীন হচ্ছেন। তারা যখন সার কিনতে যান, তখন দোকানদাররা সেগুলো বিক্রি না করে পণ্য মজুদ করে। ফলস্বরূপ, সারের ঘাটতি দেখা দিয়েছে, যা কৃষকদের জন্য খুবি ভয়ংকার।

আজকের সারের দাম ২০২৪

ফসলের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি এবং দেশের খাদ্য নিরাপত্তায় কৃষি খাতে সার একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সরকারের উদ্যোগ এবং ভর্তুকির লক্ষ্য কৃষকদের সারের প্রাপ্যতা এবং ক্রয়ক্ষমতা নিশ্চিত করা, পাশাপাশি টেকসই কৃষি পদ্ধতির প্রচার করা।মুলুত বিভিন্ন পরিস্থিতির কারণে সারের দাম অনেক ভাবে বেড়েছে ।

ইউরিয়া সারের দাম বেড়েছে কেজিতে ৫ টাকা। ফলস্বরূপ, কৃষকরা এখন প্রতি কেজি ২২ টাকায় সার কিনতে বাধ্য হচ্ছে, যার মধ্যে ডিলার পর্যায়ে ২০ টাকা এবং কৃষকদের জন্য ২২ টাকা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। বিভিন্ন উপজেলায় এক বস্তা ইউরিয়া সারের দাম ১২০০-১৩০০ টাকায়, জিএপি সারের দাম ১০০০ টাকা থেকে ১৩০০ টাকা। উপরন্তু, কৃষকদের এমওপির জন্য বেশি খরচ হচ্ছে, যা ১২০০ থেকে ১৩০০ টাকা পর্যন্ত। আগের ৭৫০ টাকার পরিবর্তে এবং TSP ১০০০ টাকার তুলনায় ১২০০ থেকে ১২৫০ টাকার মধ্যে ছিল। দুর্ভাগ্যবশত, কৃষকরা যখন সরকার থেকে নির্ধারিত মূল্যে সার পেতে চায়, তখন সার সংকটের অজুহাতে তাদের ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

প্রকার সারের দাম - Ajkerbazardam.com

ইউরিয়া সারের দাম

ইউরিয়া সার, একটি বহুল ব্যবহৃত সার। সম্প্রতি ইউরিয়া সারের দাম কেজিতে ৫ টাকা বেড়েছে। ফলস্বরূপ, ১ কেজি ইউরিয়া সারের দাম ২২ টাকা , ডিলার পর্যায়ে ২০ টাকা এবং ২২ টাকা কৃষকদের জন্য। উদ্বেগজনকভাবে, সারাদেশের বিভিন্ন উপজেলায় এক বস্তা ইউরিয়া সারের দাম ১২০০ টাকা থেকে ১৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। হঠাৎ করে এই মূল্যবৃদ্ধি কৃষকদের জন্য আর্থিক হাহাকার জনক পরিবেশ তৈরি করেছে।

  • ১ কেজি ইউরিয়া সারের দাম ২২ টাকা
  • ১ বস্তায় ইউরিয়া সারের দাম ৮০০ টাকা
  • কৃষকদের কাছে ১ বস্তা ইউরিয়া সারে বিক্রি হয় ১২০০-১৩০০ টাকা

পটাশ সারের দাম ২০২৪

বাংলাদেশে বর্তমানে পটাশ সারের গুরুতর সংকট রয়েছে, যার ফলে এর দাম উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। পটাশ সারের দাম আগের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। অভাবের কারণে দাম বেড়েছে, বাজারে সীমিত পরিমাণে সারের জন্য কৃষকদের কাছ থেকে স্বাভাবিক পরিমাণের দ্বিগুণ দাম নেওয়া হচ্ছে। তবে একটি ইতিবাচক খবর জানা যায় বাংলাদেশ রাশিয়া থেকে ১২০০০০ মেট্রিক টন মিউরেট অফ পটাশ (এমওপি) সার আমদানি করার পরিকল্পনা করছে। এই আমদানির ফলে সার সংকট দূর হবে এবং আগামী মৌসুমে কৃষকদের পটাশ সারের অভাব দূর হবে । পটাশ সার কৃষিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।

  • ১ কেজি পটাশ সারের দাম ৪৫ টাকা।
  • ৫০০ গ্রাম পটাশ সারের দাম ২৫ টাকা
  • ৫০ কেজির পটাশ সারের দাম ১৪০০ থেকে ১৬০০ টাকা।

বাজারে বর্তমানে ১ কেজি পটাশ সারের দাম ৪৫ টাকা। পটাশ সারের ৫০০ গ্রামের প্যাকেটের দাম ২৫ টাকা। তবে দেখা গেছে, কোনো কোনো দোকানে এক কেজি পটাশ সার ৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সরকার নির্ধারিত ৫০ কেজি পটাশের ব্যাগের দাম ৭০০ টাকা থাকা সত্ত্বেও। অনেক ব্যক্তি ৫০ কেজি বস্তা ১৪০০ টাকা থেকে ১৬০০ টাকা পর্যন্ত দামে বিক্রি করছে। পরের মৌসুমে এমন সমস্যা হবে না বলে আশংকা করা হচ্ছে।

টিএসপি সারের দাম

সামগ্রিকভাবে সারের দাম বাড়ার মধ্যেও টিএসপি সারের দাম কিছুটা বেড়েছে। সরকার নির্ধারিত মূল্য ঘোষণার পরও কৃষকরা নির্ধারিত হারে টিএসপি সার পাচ্ছেন না। টিএসপি সারের সরকারী মূল্য দাঁড়ায় ২৭ টাকা। প্রতি ব্যাগ ১১০০ টাকা। তবে কৃষকদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা নেওয়া হচ্ছে। বাজার মূল্যের থেকে ২০০-৩০০ টাকা বেশি। তাছাড়া টিএসপি সার বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। প্রতি কিলোগ্রাম ৩০ টাকা । মূল্য নির্ধারণের এই অসঙ্গতিগুলি কৃষকদের জন্য আর্থিক অসুবিধা তৈরি করছে, সমস্যাটি সমাধান করার এবং টিএসপি সারের ন্যায্য এবং সাশ্রয়ী মূল্যের অ্যাক্সেস নিশ্চিত করার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিচ্ছে।

  • প্রতি কেজি ৩০ টাকা
  • প্রতি বস্তায় ১১০০ টাকা
  • কৃষকদের কাছে প্রতি বস্তায় বিক্রি হয় ১২০০-১৩৫০ টাকা

এম,ও,পি সারের দাম

ইউরিয়া, টিএসপি, জিএপি এবং পটাশ সারের মতো, এমওপি সারেরও ঘাটতি রয়েছে, যার ফলে কৃষকদের স্বাভাবিকের দ্বিগুণ দামে কিনতে হচ্ছে। সরকার প্রতি বস্তা এমওপি সারের জন্য ৭৫০ টাকা নির্ধারণ করেছে, তবে তা বাজারে কৃষকদের কাছে ১০০০ টাকার বেশি বিক্রি হচ্ছে। বিশেষ করে, ১ কেজি এমওপি সারের অনুমিত মূল্য ১৫ টাকা, তবে খুচরা বিক্রেতারা একটু বেশি দাম নিচ্ছে। কৃষকদের কাছে বিক্রি করার সময় অতিরিক্ত ২০ থেকে ২৫ টাকা। এই উল্লেখযোগ্য মূল্য বৃদ্ধি কৃষকদের উপর একটি ভারী আর্থিক বোঝা চাপিয়ে দেয়, যা তাদের জন্য প্রয়োজনীয় এমওপি সার কেনার সামর্থ্যকে অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং এর মুখে ফেলে দিচ্ছে । এই সমস্যাটি মোকাবেলা করার জন্য জরুরী ব্যবস্থা প্রয়োজন এবং কৃষকদের অত্যধিক দামের শিকার না হয়ে সাশ্রয়ী মূল্যের এমওপি সারের ক্রয় ক্ষমতা ক্রায় নিশ্চিত করতে হবে।

  • ১ কেজি এম,ও,পি সারের দাম ১৫ টাকা
  • ১ বস্তা এম,ও,পি সারের দাম ৭৫০ টাকা
  • কৃষকদের কাছে প্রতি বস্তায় বিক্রি হয় ১১০০-১২০০ টাকা

জিএপি সারের দাম

ডিএপি ১ বস্তা সারের দাম বর্তমানে ১৩৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে, যার বাজার মূল্য প্রতি কেজি ২৭ টাকা। যাইহোক, ডিলাররা এটি কৃষকদের কাছে উল্লেখযোগ্যভাবে বেশি দামে বিক্রি করছে। এর মানে কৃষকদের কাছ থেকে প্রতি বস্তা ১৫০০ টাকা নেওয়া হচ্ছে। ডিলারদের দ্বারা আরোপিত এই ধরনের স্ফীত মূল্য কৃষকদের উপর যথেষ্ট আর্থিক বোঝা চাপিয়ে দেয়। কৃষকদের জন্য জিএপি সারের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করার জন্য এই সমস্যাটি অবিলম্বে মোকাবেলা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, যাতে তারা অতিরিক্ত আর্থিক চাপ ছাড়াই তাদের কৃষি কার্যক্রম টিকিয়ে রাখতে সক্ষম হয়।

  • ১ কেজি জিএপি সারের দাম ২৭ টাকা
  • ১ বস্তা জিএপি সারের দাম ১৩৫০
  • কৃষকদের কাছেপ্রতি বস্তায় বিক্রি হয় ১৮০০-১৫০০ টাকা

পরিশেষ

বাংলাদেশে সকল পণ্যের দাম বাড়ার সাথে সাথে সকল প্রকার সারের দাম বেড়েছে।যারা সকল প্রকার সারের দাম সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন আশা করি তাদের জন্য আজকের পোস্টে অনেক উপকারে আসবে।আমরা প্রতি সপ্তাহে সকল প্রকার সারের দাম আপডেট দিয়ে থাকি।সকল প্রকারের পণ্যের দাম সম্পর্কে জানতে আমদের সাথে থাকুন।

Hello friends, my name is Sajid Hasan, I am the Writer and Founder of this blog and share all the information related to Blogging, SEO, Internet, Review, WordPress, Make Money Online, News and Technology through this website.

Sharing Is Caring:

Leave a Comment