ড্রাইভিং লাইসেন্সের নতুন ফি । ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কত টাকা লাগে ২০২৪

ড্রাইভিং লাইসেন্সের নতুন ফি । ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কত টাকা লাগে ২০২৪ঃ – একটি বাইকের মালিক হওয়া অনেকের একটি স্বপ্ন, তবে এটিকে বৈধভাবে চালানোর জন্য একটি বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকা গুরুত্বপূর্ণ৷ লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালানো শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হয়। ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার জন্য, প্রথম ধাপ হল লার্নার্স ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রাপ্ত করা। এর জন্য আবেদনের সাথে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে।

চলতি বছরের শুরুতে বাংলাদেশ সরকার সব ধরনের গাড়ির রেজিস্ট্রেশন ও ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি নতুন করে নির্ধারণ করেছে। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) এখন সংশোধিত ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি প্রকাশ করেছে। বিআরটিএ বাংলাদেশের যানবাহনের উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন ধরণের ড্রাইভিং লাইসেন্স জারি করে, যেগুলিকে সাধারণত দুটি বিভাগে ভাগ করা যায়: পেশাদার এবং অপেশাদার।

পেশাদার এবং অপেশাদার উভয় ড্রাইভিং লাইসেন্সের ফি বাড়ানো হয়েছে। বর্তমানে, অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য ফি ৪১৫৮ টাকা, পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য ২৪২৭ টাকা। ড্রাইভিং লাইসেন্সের নতুন ফি নিয়ে অনেকেই বিভ্রান্তিতে রয়েছেন। অতএব, এই পোস্টে, আমরা ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কত টাকা লাগে এবং সংশোধিত ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব।

ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার উপায় ?

বাংলাদেশে ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে, আবেদনকারীকে অবশ্যই প্রয়োজনীয় প্রমাণ সহ তাদের স্থায়ী বা বর্তমান ঠিকানা সহ বিআরটিএর সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে। সার্কেল অফিস কর্তৃপক্ষ একটি লার্নারস ড্রাইভিং লাইসেন্স ইস্যু করবে, যা আবেদনকারীকে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণ নেওয়ার অনুমতি দেবে।

২-৩ মাসের প্রশিক্ষণ শেষ করার পর, আবেদনকারীকে নির্ধারিত তারিখ এবং সময়ে একটি নির্দিষ্ট কেন্দ্রে লিখিত, মৌখিক এবং মাঠের পরীক্ষার জন্য উপস্থিত হতে হবে। লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য প্রার্থীকে অবশ্যই তাদের আসল লার্নার বা শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং একটি কলম আনতে হবে।

বাংলাদেশে ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার জন্য বয়সসীমা রয়েছে। একটি অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য একজন আবেদনকারীর বয়স ন্যূনতম 18 বছর এবং পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য ন্যূনতম ২০ বছর বয়সী হতে হবে৷

ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রঃ

বাংলাদেশে একটি ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে, নিম্নলিখিত নথিগুলির প্রয়োজন:

  • একটি নির্ধারিত আবেদনপত্র ।
  • একটি নিবন্ধিত ডাক্তার দ্বারা একটি মেডিকেল সার্টিফিকেট।
  • ন্যাশনাল আইডি কার্ড, বার্থ সার্টিফিকেট বা পাসপোর্টের সত্যায়িত ফটোকপি।
  • নির্ধারিত ফি প্রদানের রসিদ, যা ক্যাটাগরি ১ এর জন্য ৩৪৫/- টাকা এবং ক্যাটাগরি ২ এর জন্য ৫১৮/- টাকা। পেমেন্টটি অবশ্যই বিআরটিএর একটি নির্ধারিত ব্যাঙ্কে করতে হবে। এই ব্যাঙ্কগুলির একটি তালিকা বিআরটিএর ওয়েবসাইটে www.brta.gov.bd পাওয়া যাবে।
  • স্ট্যাম্প সাইজের তিন কপি এবং একটি পাসপোর্ট সাইজের ছবির দরকার হবে ।

ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কত টাকা লাগে

বাংলাদেশে একটি ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে কত খরচ হয় একটি সাধারণ প্রশ্ন। ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি গাড়ির ধরন এবং লাইসেন্সের ধরণের উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হয়। বিআরটিএ সকল প্রকার যানবাহনের ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি এর একটি তালিকা প্রকাশ করেছে, যা নিচে শেয়ার করা হলো। এই তালিকা আপনাকে বর্তমান ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি নির্ধারণ করতে সাহায্য করবে।

driving lisence 709x1024 1 - Ajkerbazardam.com

ড্রাইভিং লাইসেন্স নতুন ফি কত?

বিআরটিএ নতুন ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি প্রকাশ করেছে, যা আগের ফি থেকে প্রায় ৬০% বেড়েছে। অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি ২৫৪২ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪১৫২ টাকা করা হয়েছে এবং পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি ১৬৭৯ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২৪২৭ টাকা করা হয়েছে। উপরন্তু, বর্তমান ফি সহ নতুন গাড়ির রেজিস্ট্রেশন ফি উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করা হয়েছে। নতুন মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশন হচ্ছে ১২২৬৭ টাকা, যা আগে ছিল ১০১৫২ টাকা এবং এখন ২১১৫ টাকা বাড়ানো হয়েছে, যা পরবর্তী দুই বছরের জন্য বৈধ।

লাইসেন্স করতে কত টাকা লাগে ২০২৩ - Ajkerbazardam.com

মোটরসাইকেল ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কত টাকা লাগে

মোটরসাইকেল ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে ড্রাইভিং লাইসেন্স বর্ধিতকরণ ফি, রেজিস্ট্রেশন ফর্ম ফি এবং ভ্যাট সহ বেশ কয়েকটি ফি প্রদান করতে হয়। বিআরটিএ ২০২৪ সালে সব ধরনের ড্রাইভিং লাইসেন্স ও যানবাহনের রেজিস্ট্রেশন ফি বাড়িয়েছে। আগে মোটরসাইকেলের লাইসেন্সের জন্য মোট ফি ছিল ২৫৪২ টাকা, কিন্তু বর্তমানে ১৬১০ টাকা বাড়িয়ে ৪১৫২ টাকা করা হয়েছে।

ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন ফি

ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন বলতে ড্রাইভিং লাইসেন্সের মেয়াদ বাড়ানোর প্রক্রিয়াকে বোঝায়। অনেক দেশে, ড্রাইভিং লাইসেন্সের একটি নির্দিষ্ট মেয়াদ থাকে এবং একটি নির্দিষ্ট সময়ের পরে নবায়ন করতে হয়। প্রক্রিয়াটিতে সাধারণত একটি আবেদন জমা দেওয়া, প্রাসঙ্গিক নথি প্রদান করা এবং প্রয়োজনীয় ফি প্রদান করতে হয় । দেশ ও ড্রাইভিং লাইসেন্সের ধরনের উপর নির্ভর করে নবায়নের সময়কাল এবং ফি পরিবর্তিত হতে পারে। গাড়ি চালানোর সময় কোনো আইনি জটিলতা এড়াতে নিজের ড্রাইভিং লাইসেন্স আপ-টু-ডেট রাখা জরুরি।

এই পোস্টে, আমরা বাংলাদেশে বর্তমান ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন ফি নিয়ে আলোচনা করব। যেহেতু ২০২৪ সালে ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি বাড়ানো হয়েছে, অনেক মানুষ তাদের লাইসেন্স নবায়ন করতে কত খরচ হয় তা জানতে চাওয়ার জন্য অনলাইনে সার্চ করেন ।নিচে কত খরচ হবে নিচে দেয়া হলঃ…

অপেশাদারঃ

অপেশাদার চালকদের জন্য, ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়নের প্রক্রিয়ার মধ্যে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ বিআরটিএর মনোনীত সার্কেল অফিসে নির্ধারিত ফি জমা দিতে হয়। নির্ধারিত ফি ( মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিনের মধ্যে হলে ৪১৫২/- টাকা ও মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিন পরে প্রতি বছর ২০০/- টাকা জরিমানাসহ) জমা দিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ বিআরটিএর নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে । আবেদনপত্র এবং প্রয়োজনীয় নথি জমা দেওয়ার পরে, একই দিনে গ্রাহকের বায়োমেট্রিক্স, ডিজিটাল ফটোগ্রাফ, ডিজিটাল স্বাক্ষর এবং আঙুলের ছাপ সংগ্রহ করে থাকে । স্মার্ট কার্ড প্রিন্টিং সম্পন্ন হলে গ্রাহককে এসএমএসের মাধ্যমে অবহিত করা হবে ।

পেশাদারঃ

একটি পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন করতে, লাইসেন্সধারীকে প্রথমে একটি ব্যবহারিক পরীক্ষা পুনরায় দিতে হবে। পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর নির্ধারিত ফি ( মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিনের মধ্যে হলে  ২৪২৭/- টাকা ও মেয়াদোত্তীর্ণের ১৫ দিন পরে প্রতি বছর ২০০/- টাকা জরিমানাসহ ) জমা দিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ বিআরটিএর নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে। আবেদনকারীকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ বিআরটিএর মনোনীত সার্কেল অফিসে আবেদন করতে হবে। ডিজিটাল ফটোগ্রাফ, ডিজিটাল স্বাক্ষর এবং আঙুলের ছাপ সহ বায়োমেট্রিক্সের জন্য আবেদনকারীকে একই অফিসে যেতে হবে। স্মার্ট কার্ড প্রিন্টিং প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার পর গ্রাহককে এসএমএসের মাধ্যমে নবায়নের বিষয়ে অবহিত করা হবে।

পরিশেষ

অপেশাদার এবং পেশাদার উভয় ড্রাইভিং লাইসেন্সের নবায়ন প্রক্রিয়ার জন্য বিআরটিএর নির্দিষ্ট সার্কেল অফিসে নির্ধারিত ফি এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে। যে কেউ মোটরসাইকেল বা যানবাহন চালাতে চান তাদের জন্য ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এর জন্য ড্রাইভিং শিখতে হবে এবং বিআরটিএ থেকে লাইসেন্স নিতে হবে। এই পোস্টে, আমরা ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কত টাকা লাগে, সেইসাথে ২০২৪ সালের জন্য ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন ফি নিয়ে আলোচনা করেছি। আমরা আশা করি এই পোস্টি আপনাদের অনেক উপকারে আসছে ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top